মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

অফিস সম্পর্কিত

শিল্পনগরী ও আঞ্চলিক রাজধানী হিসাবে পরিচিত খুলনা বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম শহর৷ ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা ও তদানুযায়ী বাসস্থান, কর্মের সুযোগ। নাগরিক সুবিধা প্রদান, পরিকল্পিত নগরায়ন ও আধুনিক খুলনা গড়ার উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে তদানীন্তন সরকার কর্তৃক জারীকৃত এক অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে ১৯৬১ সালের ২১ জানুয়ারী খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা লাভ করে। বাং,লাদেশ সরকার কর্তৃক নিয়োগকৃত একজন চেয়ারম্যান ও ১২ (বার) জন সদস্য বিশিষ্ট বোর্ডের মাধ্যমে কেডিএর কর্মকান্ড পরিচালিত হয়। প্রতিষ্ঠাকালিন সময় হতে নগর পরিকল্পনা, মহানগর উন্নয়নে অংশ গ্রহন এবং অপরিকল্পিত উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে কাজ করে যাচ্ছে। তার উন্নয়ন নিয়ন্ত্রনের লক্ষ্যে ১৯৬১ সালে ১৮১ বঃকিঃমিঃ এলাকা নিয়ে প্রথম মহাপরিকল্পনা প্রনয়ণ করে এবং পরবর্তীতে উত্তরে নওয়াপাড়া, দক্ষিণে কৈয়াবাজার, পূর্বে খুলনা জেলাধীন রুপসা উপজেলা এবং পশ্চিমে বটিয়াঘাটা উপজেলার কৈয়া বাজার নিয়ে মোট ৪৫১.১৮ বঃকিঃমিঃ এলাকার উপর দ্বিতীয় মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করে যা ২০০২ সালে গেজেটভূক্ত হয়। তাছাড়াও মংলা পর্যন্ত বিস্তৃত অতিরিক্ত ৩৬৭.২৭ বঃকিঃমিঃ এলাকা অন্তর্ভূক্তির কার্যক্রম প্রায় শেষ হয়েছে। গেজেট প্রকাশের অপেক্ষায়।

 

     খুলনা মহানগরী ও তৎলগ্ন এলাকার বসবাসকারীদের আবাসন সমস্যা দূরীকরণের জন্য কেডিএ ৯টি পরিকল্পিত আবাসিক এলাকা উন্নয়ন করে ৩২৫৯টি প্লট জনসাধারণের মধ্যে বরাদ্দ প্রদান করেছে৷ ব্যবসা বাণিজ্যিক কার্যক্রম সম্প্রসারণের সুযোগ সুবিধায় বিবিধ স্থানে ১৩০২টি দোকান/স্টল সমন্বয়ে ৬টি আধুনিক মার্কেট নির্মাণ করেছে। এছাড়া ১২ একর জমিতে সোনাডাংগা আন্তঃজেলা বাসটার্মিনাল ৫১১.২৯ একর জমিতে শিল্প প্লট উন্নয়ন করতঃ সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার মধ্যে বরাদ্দ প্রদান করেছে। জনকল্যাণমূলক প্রকল্প সমূহের মধ্যে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন স্মৃতিসৌধ নির্মাণ, বিভিন্ন স্থানে যাত্রী ছাউনী নির্মাণ মসজিদ স্কুল নির্মাণ বৃক্ষরোপন ও গাছের চারা বিতরণ করেছে। তাছাড়াও খুলনা উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করেছে৷

 

     পরিশেষে জাতীয় উন্নয়নের উদ্দেশ্যসমূহ বাস্তবায়ন, খুলনা মহানগরীর দীর্ঘ্য মেয়দী সমস্যার সমাধান, দারিদ্রমুক্তকরণ,অর্থনৈতিক স্থবিরতা দূর করে উন্নয়নের গতি সঞ্চার করাসহ উন্নয়ন কর্মকান্ডে জনগণের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহনে নিশ্চিত করে মহানগরবাসীর স্বপ্ন পূরণই হবে কেডিএর মূল  লক্ষ্য৷   

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter